19 C
Dhaka,BD
January 29, 2023
Uttorbongo
বিনোদন হলিউড

লেডি অব হ্যাভেন’র প্রদর্শনী বন্ধ যুক্তরাজ্যে ‘ইসলাম বিদ্বেষী’

যুক্তরাজ্য জুড়ে মুসলমানদের প্রতিবাদের জেরে বিতর্কিত ছায়াছবি ‘লেডি অভ হ্যাভেন’ এর প্রদর্শনী স্থগিত করেছে প্রেক্ষাগৃহ চেইন সিনে ওয়ার্ল্ড।

ছবিটির সমালোচনাকারীরা একে বিতর্কিত, ধর্মদ্রোহী এবং বর্ণবাদী বলে অভিহিত করেছে। সারাদেশে বিক্ষোভকারীরা প্রতিবাদে সোচ্চার হবার ফলে অনেক সিনেমা চেইন ছবিটি তাদের প্রদর্শনী  থেকে সরিয়ে নিয়েছে। অনলাইনে করা এক পিটিশনে এক লাখ ২৬ হাজার লোক ছবিটির প্রদর্শনী বন্ধ করার দাবী জানিয়ে স্বাক্ষর করেছিল।

তবে দ্য লেডি অফ হ্যাভেনের নির্মাতারা এবং বাক স্বাধীনতা প্রচারকরা বলছেন যে এটি একটি “বিপজ্জনক” উদাহরণ স্থাপন করবে।

গত ৩ জুন যুক্তরাজ্যে মুক্তি প্রাপ্ত এই চলচ্চিত্রটি নবী মুহাম্মদের কন্যা  ফাতিমাকে কেন্দ্র করে। এই গল্পটি প্রায় ১,৪০০ বছর পরে আধুনিক সময়ে একটি ছোট ইরাকি শিশুর জীবন কাহিনীর সাথে মিল রেখে করা।

গল্প লিখেছেন শিয়া মুসলিম ধর্মগুরু শেখ ইয়াসের আল-হাবিব। তিনি এতে ফাতিমার মৃত্যুকে চিত্রিত করেছেন এবং তাকে “সন্ত্রাসবাদের প্রথম শিকার” হিসাবে বর্ণনা করেছেন। এই বিষয়ে ধর্মের ভিন্ন ভিন্ন মত রয়েছে। প্রধানত সুন্নি মুসলমানরাই চলচ্চিত্রটির তীব্র সমালোচনা করে বলেছে, প্লটটি ঐতিহাসিক ঘটনাগুলি সঠিকভাবে তুলে ধরেনি।

ছবিটি ভিউ, শোকেস এবং সিনেওয়ার্ল্ড সিনেমায় দেখানোর কথা ছিল। পরবর্তীতে স্টাফ এবং গ্রাহকদের নিরাপত্তার উদ্বেগ উল্লেখ করে সিনেওয়ার্ল্ড সব ধরনের প্রদর্শন বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

পর্দায় এবং শিল্পকলায় ইসলামী নবীদের চিত্রায়ন দীর্ঘদিন ধরে বিতর্কিত। দ্য লেডি অফ হ্যাভেন চলচ্চিত্র নির্মাতারা বলছেন যে ইসলামিক ঐতিহ্য অনুসারে, তারা একজন পবিত্র ব্যক্তিকে একজন মানুষের দ্বারা প্রতিনিধিত্ব না করার জন্য অনেক চেষ্টা করেছেন। ফাতিমার ভূমিকায় কোনও অভিনেত্রী ছিলেন না। পরিবর্তে, পারফরম্যান্সটি সিজিআই, আলো এবং ভিজ্যুয়াল এফেক্টের মিশ্রণের মাধ্যমে তৈরি করা হয়েছে।

কিন্তু চলচ্চিত্রটির সমালোচনা মূলত, ইসলামের প্রথম খলিফা হযরত মুহাম্মদের সাথী আবু বকর এবং উমর ইবন আল-খাত্তাবসহ আরও বেশ কয়েকটি চরিত্রের চিত্রায়নকে কেন্দ্র করে।

দ্য লেডি অফ হ্যাভেন এর নির্বাহী প্রযোজক মালিক শ্লিবাক স্কাই নিউজকে বলেন যে ছবিটি ফাতিমার “জীবন, তার সংগ্রাম, তিনি যে যাত্রার মধ্য দিয়ে গেছেন” তাঁর গল্প। আমরা বিশ্বাস করি, উগ্রবাদ, মৌলবাদ ও দুর্নীতির মতো বিষয়গুলো কীভাবে মোকাবেলা করতে হয়, তা জানার জন্য তিনি আজ আমাদের জন্য ইতিহাসের সেরা ব্যক্তিত্ব। এবং আমরা অনুভব করেছি যে এই গল্পটি বিশ্বের কাছে তুলে ধরা গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি বলেন, বিষয়টি উসকানিমূলক কি না নির্ভর করে আপনি কাকে জিজ্ঞেস করছেন. যে কোনও ধর্মীয় বিষয় সম্পর্কে বিভিন্ন গোষ্ঠীর মধ্যে মতানৈক্য থাকবেই। আমরা ইতিহাসের একটি অতি-রোমান্টিক সংস্করণ উপস্থাপন করছি না। আমরা সিনেমাটি নির্মাণের আগে   এক বছর কাজ করেছি  করেছি যাতে ইতিহাস সঠিক হয় তা নিশ্চিত করতে।

দেশটির ব্র্যাডফোর্ডে এই চলচ্চিত্রেরর বিরুদ্ধে একটি প্রতিবাদের আয়োজনকারী শহীদ আলী স্কাই নিউজকে বলেন, চলচ্চিত্রটি ইসলামের প্রাথমিক খলিফাদের সন্ত্রাসী হিসেবে মিথ্যা বয়ান তুলে ধরেছে। সারা বিশ্বে ২০০ কোটি মুসলমানের একটি বিশাল অংশ তাদেরকে শ্রদ্ধা করে।

যারা আমাদের ধর্মের প্রতিষ্ঠাতা ব্যক্তিত্ব মুসলমানরা স্বাভাবিকভাবেই তাদেরকে ভালোবাসে এবং শ্রদ্ধা করে। তাদের মধ্যে ভ্রান্ত ধারণা তৈরি হবে। বিশেষ করে যাদের ইসলাম সম্পর্কে খুব কম জ্ঞান রয়েছে তাদের মধ্যে ধারণা হবে যে ইসলামের কেন্দ্রীয় ব্যক্তিত্বগুলি প্রকৃতপক্ষে সন্ত্রাসী। আর যে সকল মুসলমান তাদের শ্রদ্ধা করে এবং তাদের সম্মান করে, তারাও একই রকম। সুতরাং এটি একটি অত্যন্ত বিপজ্জনক এবং একটি চরম সাম্প্রদায়িক আখ্যান ।

অন্যদিকে, মি. শ্লিবাক বলেন লোকেরা ফিল্মটির সমালোচনা করতে এবং তাদের নিজস্ব মতামত রাখার ক্ষেত্রে স্বাধীন। তবে  ‘প্রতিবাদকারীরা তাদের সীমানা অতিক্রম করেছে এবং এটি ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গির লোকেদের সেন্সর করার প্রচেষ্টা।

এর প্রতিক্রিয়ায় প্রতিবাদের সংগঠক জনাব আলী বলেন, যখন কেউ প্রকাশ্যে সমকামীদের বিরুদ্ধে তাদের মতামত প্রকাশ করে, তাহলে এটি হোমোফোবিয়া, অথবা কেউ খোলাখুলিভাবে ইহুদিদের বা তাদের ধর্মের বিরুদ্ধে নেতিবাচক কিছু বললে সেটি এন্টিসেমিটিজম। যখন এটি কালো মানুষের বিরুদ্ধে হয়, তখন এটি বর্ণবাদ। কিন্তু যখন মুসলমানদের কথা আসে, তখন তা বাকস্বাধীনতা। আর মুসলমানরা সত্যিই এসব নিয়ে বিরক্ত হয়ে পড়েছে।

এক টুইট বার্তায় ব্যারোনেস ক্লেয়ার ফক্স বলেন, সিনেমা হল থেকে চলচ্চিত্রটি সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত শিল্পকলার জন্য বিপর্যয়কর, বাকস্বাধীনতার জন্য বিপজ্জনক, যারা আত্মপরিচয়ের রাজনীতি গণতন্ত্রের জন্য হুমকি নয় বলে মনে করে এই ঘটনা তাদের জন্য একটি শিক্ষা। প্রায় ৩,৭০০ জন লোক একটি অনলাইন পাল্টা পিটিশনে স্বাক্ষর করেছে যাতে যুক্তরাজ্যের সিনেমাগুলোতে ছবিটিকে দেখানোর আহ্বান জানানো হয়েছে।

তিনি মনে করেন, অনলাইনে বুলিং এর কারণে এটিকে সরিয়ে নেওয়া ইউকে-এর মতো একটি মুক্ত এবং প্রগতিশীল দেশের জন্য উপযুক্ত নয়।

BBFC (ব্রিটিশ বোর্ড অফ ফিল্ম ক্লাসিফিকেশন) বলেছে যে দ্য লেডি অফ ক্যাটাগরি ১৫ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে।

সংস্থাটি একটি বিবৃতিতে বলেছে, “চলচ্চিত্র নির্মাতারা তাদের চলচ্চিত্রের মধ্যে ঐতিহাসিক বা বিতর্কিত থিম এবং ইভেন্টগুলি খুঁজতে করতে স্বাধীন। বিবিএফসি-র কাজ হলো আমাদের নির্দেশিকাগুলির ওপর ভিত্তি করে ছবিটি যথাযথভাবে ক্যাটাগরিতে যুক্ত করা। যেন শিশু এবং অন্যান্য দুর্বল মানুষেরা সচেতন থাকতে পারেন।

সিনেওয়ার্ল্ডকে পাঠানো এবং তাদের সোশ্যাল মিডিয়া সাইটগুলোতে শেয়ার করা একটি চিঠিতে, বোল্টন কাউন্সিল অফ মসজিদস ছবিটিকে “নিন্দনীয়” হিসাবে বর্ণনা করেছে এবং বলেছে যে এটি বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের জন্য অনেক বেদনার সৃষ্টি করেছে।

ওই চিঠিতে আরও বলা হয়, এটি একটি সাম্প্রদায়িক মতাদর্শের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে এবং এটি মুসলিম সম্প্রদায়ের কাছে নিন্দনীয়। এটি নবী মুহাম্মদকে বিভিন্নভাবে চরমভাবে অসম্মান করেছে এবং প্রত্যেক মুসলমানের জন্য যা গভীরভাবে বিরক্তিকর। “Remove The Lady Of Heaven from UK cinemas”  পিটিশনে এ পর্যন্ত ১,২৬,০০০ মানুষ স্বাক্ষর করেছে। এতে বলা হয়েছে, ছিবিটির বিষয়বস্তু মুসলমান্দের জন্য বেদনাদায়ক। এতে “ইসলাম সম্পর্কে মিথ্যা তথ্য ছড়ানো হয়েছে”, এবং নবী মুহাম্মদকে “সরাসরি অসম্মান” করা হয়েছে।

ব্রিটিশ মুসলিম নিউজ সাইট ফাইভপিলারস-এর সম্পাদক রোশন এম সালেহ টুইটারে লিখেছেন, ‘আমি সহজভাবে বলতে চাই- লেডি অব হ্যাভেনের নিষিদ্ধ করা উচিত, কারণ এর ফলে সাম্প্রদায়িক সহিংসতা হতে পারে। মুসলিমরা নবী ও সাহাবাকে এত ভালোবাসে যে, এ ধরনের উসকানি কিছু বিপথগামী ব্যক্তির কাছ থেকে অপরাধমূলক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে।

ইংল্যান্ডে মুক্তির পর, দ্য লেডি অফ হ্যাভেন ব্ল্যাকবার্ন, ব্র্যাডফোর্ড, ব্রিস্টল, বার্মিংহাম, বোল্টন, কার্ডিফ, কভেন্ট্রি, ডার্বি, গ্লাসগো, লিডস, লিসেস্টার, লিভারপুল, ম্যানচেস্টার, মিল্টন কেইনস এবং লন্ডনের বিভিন্ন স্থানে সিনেওয়ার্ল্ড, ভিউ এবং শোকেস সিনেমায় প্রদর্শিত হওয়ার কথা ছিল ।

সিনেওয়ার্ল্ড নিশ্চিত করেছে যে তারা বিক্ষোভের পর চলচ্চিত্রটি সব জায়গা থেকে সরিয়ে নিয়েছে। তারা বলেছে: “দ্য লেডি অফ হ্যাভেনের স্ক্রিনিং সম্পর্কিত সাম্প্রতিক ঘটনাগুলির কারণে, আমরা আমাদের কর্মী এবং গ্রাহকদের সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য দেশব্যাপী চলচ্চিত্রটির আসন্ন প্রদর্শনী বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।

তবে ভিউ সরাসরি কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি, যদিও চলচ্চিত্রটি এখন কেবল লন্ডনের কিছু স্থানে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। তারা বলছে, বিবিএফসি (স্বাধীন ব্রিটিশ বোর্ড অব ফিল্ম ক্লাসিফিকেশন) যখন কোনো চলচ্চিত্রের মূল্যায়ন করবে, তখনই ভিউ একটি চলচ্চিত্র প্রদর্শন করবে। দ্য লেডি অফ হ্যভেন বিবিএফসি স্বীকৃত হয়েছে এবং আমাদের বেশ কয়েকটি সিনেমা হলে এটি প্রদর্শিত হচ্ছে।

Related posts

চলে গেলেন অভিনেত্রী শর্মিলী আহমেদ

Asha Mony

মালয়েশিয়ায় বিমানবন্দরে অনন্ত-বর্ষাকে ফুলেল শুভেচ্ছা

Asha Mony

অর্পিতার দাবি উদ্ধার হওয়া কোটি কোটি টাকা তাঁর নয়

admin