20 C
Dhaka,BD
February 9, 2023
Uttorbongo
দিনাজপুর দেশজুড়ে রংপুর

দিনাজপুরে বৃষ্টির আশায় তিন গ্রামে ইন্দ্র দেবের নগর বিয়ে

কয়েকদিন ধরে দিনাজপুরসহ পুরো উত্তরাঞ্চলে বৃষ্টির দেখা নেই। তীব্র তাপদাহে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। শুকিয়ে যাচ্ছে নদী-নালা, খাল-বিল, পুকুর ও জলাশয়। ফেটে চৌচির হয়ে পড়েছে মাঠঘাট। ব্যাহত হচ্ছে ধানের চাষাবাদ। জাগ দেওয়া যাচ্ছে না পাট। তাই বৃষ্টির আশায় বৃষ্টির দেবতা হিসেবে পরিচিত ইন্দ্র দেবের নগর বিয়ের আয়োজন করে দিনাজপুর সদর উপজেলার সনাতন ধর্মাবলম্বীর লোকজন।

সোমবার (১৮ জুলাই) রাত ১০টার দিকে উপজেলার শেখপুরা ইউনিয়নের নুলাইবাড়ী কর্মকারপাড়ায় এ বিয়ের কার্যক্রম শুরু হয়। যা চলে রাত ২টা পর্যন্ত।

এর আগে সন্ধ্যায় একই ইউনিয়নের দক্ষিণ নগর গ্রামেও এ বিয়ের আয়োজন করা হয়। রাত ২টার পর একই ইউনিয়নের উত্তর গোপালপুরেও বিয়ের আয়োজন করা হয়।

নুলাইবাড়ী গ্রামের বাসিন্দা ও দিঘন এসসি উচ্চ বিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষক রতন কুমার কর্মকার এ নগর বিয়ের আয়োজন করেন।

jagonews24

তিনটি বিয়েতেই বর ইন্দ্র দেব হিসেবে আসনে বসেন প্রাণকৃষ্ণ ও কনে সেজে কলাবতীর আসনে বসেন প্রদীপ রায়। এরমধ্যে নুলাইবাড়ী কর্মকারপাড়ায় বিয়েতে বরের বাবা ছিলেন ললিত মোহন রায়। আর কন্যার বাবা ছিলেন রতন কুমার কর্মকার।

বাজনা, সাদনা তলায় পুরোহিতের মন্ত্রপাঠ, সাতপাকে বাধা, মালাবদল, সিদুরদান সনাতন ধর্মাবলম্বীদের রীতি অনুযায়ী সব আয়োজনের মধ্যে বিয়ে দেওয়া হয়। বিয়ের পুরোহিত ছিলেন পরিতোষ চক্রবর্তী। পৃথক তিনটি বিয়ের আয়োজনে প্রায় ১ হাজার ৫০০ অতিথিকে আপ্যায়ন করা হয়।

বিয়ে দেখতে আসা কিশোরী সঞ্চিতা রায় বলেন, এ ধরনের বিয়ে আমি কোনোদিন দেখিনি। আজ জীবনে প্রথম এ বিয়ের আয়োজন দেখলাম। কিন্তু দাদা-দাদির কাছে শুনেছি, যখন অনাবৃষ্টি ও খরা দেখা দেয় তখন এ ধরনের বিয়ের আয়োজন করা হয়। আজ নিজে উপস্থিত থেকে বিয়েটা দেখার সৌভাগ্য হয়েছে আমার।

jagonews24

৫৫ বছর বয়সী নীরেন চন্দ্র রায় বলেন, ‘বৃষ্টির আশায় আমরা বিয়ের আয়োজন করেছি। সৃষ্টিকর্তার কাছে বৃষ্টি প্রার্থনা করেছি।’

আয়োজক রতন কুমার কর্মকার জাগো নিউজকে বলেন, ‘বর্তমানে দিনাজপুরসহ উত্তরাঞ্চলে অনাবৃষ্টি দেখা দিয়েছে। তীব্র রোদে জমি ফেটে চৌচির হয়ে পড়েছে। জনজীবন একেবারে বিপর্যস্ত। ঠিকমতো কৃষকরা ধান লাগাতে পারছে না। তীব্র গরমে কোন ভাবেই ক্ষেতেও কাজ করা যাচ্ছে না। পাট জাগ নিয়ে কৃষকরা পড়েছেন বিপাকে। তাই আমরা বৃষ্টির জন্য বৃষ্টির দেবতা ইন্দ্র দেব ও কলাবতীর এ বিয়ের আয়োজন করেছি।’

পুরোহিত পরিতোষ চক্রবর্তী জাগো নিউজকে বলেন, ‘লোকাচার মেনে পূর্ব পুরুষদের আমল থেকে নগর বিয়ের এ রীতি চলে আসছে। এটা হলো ইন্দ্র রাজার বিয়ে। যখন কোথাও অনাবৃষ্টি দেখা দেয় তখন সেই এলাকায় নেচে গেয়ে গ্রামে গ্রামে গিয়ে ইন্দ্র রাজার বিয়ের আয়োজন করা হয়। আমরা সেই পূর্ব পুরুষদের রীতি ধরে রাখছি। বিয়েতে বৃষ্টির জন্য সবাই প্রার্থনা করি।’

Related posts

খালিদের স্থপতি হওয়ার স্বপ্ন পূরণে পাশে দাঁড়ালেন ইউএনও

admin

লালমনিরহাটে পুকুরে ডুবে শিশুর মৃত্যু

Asha Mony

কুমিল্লায় নির্বাচনে কমিশন ব্যর্থ: ফখরুল

admin