20 C
Dhaka,BD
February 9, 2023
Uttorbongo
জয়পুরহাট দেশজুড়ে রাজশাহী

থানা হাজতে ‘অসুস্থ’ হয়ে মৃত্যু ,আটকের পর

জয়পুরহাটে আটকের পর মনিরুজ্জামান (৩৮) নামে এক পৌর কর্মচারীর মৃত্যু হয়েছে। সাবেক স্ত্রীকে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে থানা হাজতে থাকা অবস্থায় অসুস্থ হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি।

বুধবার (৮ জুন) দুপুরে জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে তিনি মারা যান। এর আগে সকালে তাকে জয়পুরহাট শহরের নতুনহাট দেওয়ানপাড়া মহল্লার একটি ভাড়া বাসা থেকে আটক করা হয়।

মনিরুজ্জামান দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার বড় ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃত কছির উদ্দিনের ছেলে।

থানা-পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মনিরুজ্জামানের সঙ্গে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বাগজানা ইউনিয়নের তাঁতিপাড়া এলাকার মৃত ইদ্রিস আলীর মেয়ে কুইন বেগম (২৭) প্রায় দুই বছর আগে পরকীয়া প্রেমে জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে কুইন তার আগের স্বামীকে তালাক দিয়ে মনিরুজ্জামানকে বিয়ে করেন। তাদের সংসারে একটি ছেলে সন্তানের জন্ম হয়।

পরে কুইন জয়পুরহাট শহরের দেওয়ান পাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস শুরু করেন। কিন্তু সন্তানটি মনিরুজ্জামানের নয় দাবি করে প্রায়ই তাদের মধ্যে কলোহ হতো। পরে মনিরুজ্জামান দশ মাস আগে কুইনকে তালাক দিলে কুইন আদালতে যৌতুক ও দেনমোহরের দুটি মামলা করেন। মামলা তুলে নিতে মনিরুজ্জামান বিভিন্ন সময় কুইনের ভাড়া বাসায় এসে নানা রকম হুমকি ও নির্যাতন করতেন।

মঙ্গলবার মনিরুজ্জামান গভীর রাতে প্রাচীর টপকে সাবেক স্ত্রী কুইন বেগমের ভাড়া বাসায় ঢোকেন। তাকে আবারও ঘরে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে বুঝানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি কুইনকে গলাটিপে হত্যার চেষ্টা করেন।

বুধবার সকালে লোকজন ঘটনাটি জানতে পারেন। এরপর কুইন বেগম বুধবার সকালে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯-এ কল করে ঘটনাটি জানান। পরে থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সকালে মনিরুজ্জামানকে আটক করে হাসপাতালে নিয়ে যায়। হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে তাকে থানা হাজতে আনা হয়।

মনিরুজ্জামান থানা হাজতে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে পুনরায় হাসপাতালে নেওয়া হয়। তিনি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুরে মারা যান।

দিনাজপুরের হাকিমপুর পৌরসভার মেয়র এনএএম জামিল হোসেন চলন্ত জানান, মনিরুজ্জামান পৌরসভার চতুর্থ শ্রেণির একজন কর্মচারী। তার দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গে পারিবারিক কলোহ নিরসনে ইতোপূর্বে সালিশও করা হয়েছিল। সে মাদকাসক্ত হওয়ায় পরিবারের পক্ষ থেকে এর আগে তাকে জয়পুরহাটের একটি মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্রে ২ মাস পুনর্বাসনের জন্য রাখা হয়েছিল।

হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক সরদার রাশেদ মোবারক বলেন, পুলিশ মনিরুজ্জামানকে সকালে একবার হাসপাতালে আনে। আবার দুপুরেও তাকে হাসপাতালে আনে পুলিশ। চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা গেছেন। ময়নাতদন্তের পর মরদেহ হস্তান্তর করা হবে।

জয়পুরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ কে এম আলমগীর জাহান বলেন, মুনিরুজ্জামান তার সাবেক স্ত্রীর বাড়িতে যাওয়ার আগে মাদক গ্রহণ করেছিলেন জানার পর তাকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছিল। চিকিৎসা শেষে তাকে থানা হাজতে রাখা হয়। সেখানে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। পুলিশ দ্রুত তাকে আবারও হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। মনিরুজ্জামান নিয়মিত মাদক গ্রহণ করতেন বলেও তিনি জানান।

Related posts

বগুড়ায় সড়কে ঝরলো ৮ প্রাণ

Asha Mony

নাটোরে পিকআপের ধাক্কায় ইজিবাইকের ২ যাত্রী নিহত

Asha Mony

মোটরসাইকেল ওভারটেক করা নিয়ে দ্বন্দ্ব, যুবককে ছুরিকাঘাতে হত্যা

Asha Mony