20 C
Dhaka,BD
February 9, 2023
Uttorbongo
খেলাধুলা ফুটবল

৫ হাজার কোটি টাকা প্রয়োজন বার্সেলোনাকে ‘বাঁচাতে’

লা লিগার নিয়মের ফাঁদে পড়েছে বার্সেলোনা। অর্থনৈতিক দূরাবস্থা কাটাতে তাদের প্রয়োজন ৫০০০ কোটি টাকা। না হলে, খেলোয়াড় ক্রয় বিক্রয়ে অংশ নিতে পারবে না স্প্যানিশ জায়ান্টরা। জানিয়েছেন ক্লাবটির সহ সভাপতি এডোয়ার্ড রোমিও। যে কারণে, নতুন বিনিয়োগকারীর সন্ধানে নেমেছে কাতালোনিয়ান ক্লাব কর্তারা।

বিশ্ব অর্থনীতিকে বিশাল এক ধাক্কা দিয়ে গেছে করোনা মহামারি। কোভিডের কয়েক দফা আক্রমণে শূন্যতা ভর করেছে পৃথিবীর নানা সেক্টরে। ভেঙে গেছে অর্থনৈতিক কাঠামো, মাঠা তুলে দাঁড়ানো তো দূরে থাক বন্ধ হয়ে গেছে বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম।

ক্রীড়া বিশ্বে এর প্রভাব পড়েছে ব্যাপক। বিশেষ করে, বেতন ভাতা নিয়ে ফুটবলে ক্লাবগুলো রীতিমতো ধুঁকছে। ঋণের বোঝা বেড়ে গেছে অন্য ক্লাবগুলোর তুলনায় কয়েক গুণ।

জায়ান্টদের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা বার্সেলোনার। দুটো পক্ষ থেকে ঋণের প্রস্তাব আসলেও, নানা হিসেবের মারপ্যাঁচে সেখানে চুক্তিবদ্ধ হতে পারেনি ক্লাবটি। ২৭০০ কোটি টাকা নিতে হলে তখন, টিভি স্বত্বের ১০ ভাগ দিতে হতো সেই প্রতিষ্ঠানকে। যে কারণে, একা একাই পথ চলার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ক্লাবটি।

কিন্তু, হিতে বিপরীত হয়ে গেছে সেটাই। ১০ হাজার কোটি টাকার ঋণ ঝুলছে এখন কাতালোনিয়ানদের ওপরে। আয়ের পথ কমে যাওয়ায়, অতিক্রম করে চলেছে ব্যয়ের সীমা। এতটাই বাজে অবস্থা যে চাইলেও দলবদলের বাজারে উন্মুক্তভাবে নামতে পারবে না লাপোর্তো বাহিনী। লা লিগার আইনের কারণে, ঋণ নিয়েও সম্ভব না সেটা। ক্লাব বাঁচাতে তাই যে কোনো মূল্যে ফান্ডে প্রয়োজন ৫০ কোটি ইউরো।

বার্সেলোনার ভাইস প্রেসিডেন্ট এডোয়ার্ড রোমিও বলেন, আমাদের ঋণাত্মক মূলধনের পরিমাণ অতিরিক্ত বেড়ে গেছে। দিনকে দিন এটা বাড়ছেই। কোনোভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। যার পরিমাণ এখন ৫০০০ কোটি টাকা। সম্পদের এ ভারসাম্যহীনতা আমাদের অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দিচ্ছে। ক্লাব বাঁচাতে হলে এখনই এ টাকাটা আমাদের শোধ করতে হবে। না হলে এ বছরের ক্ষতিতে আরও ১৫ কোটি ইউরো যুক্ত হবে। তখন আর কিছুই আমাদের হাতে থাকবে না।

ব্যয় কমাতে ইতোমধ্যে বিভিন্ন ধরনের কার্যক্রম হাতে নিয়েছে বার্সেলোনা। সিনিয়র ফুটবলারদের বেতন অনেকটাই কমিয়ে এনেছে তারা। নতুন যারা এসেছেন তাদের বেতন-ভাতাও আহামরি নয়। তবে, সমস্যা হচ্ছে টিকে থাকতে হলে যে স্কোয়াড প্রয়োজন তা’তে নতুন রিক্রুট লাগবে জাভির। আর সেখানেই যত সমস্যা বার্সার। কারণ, চেলসি ডিফেন্ডার ক্রিশ্চিয়ানসেন এবং মিলানের কেসির সঙ্গে চুক্তি হলেও, লা লিগার ফেয়ার প্লে’র কারণে দলে যুক্ত হতে পারছেন না তারা।

এডোয়ার্ড রোমিও বলেন, লা লিগার নিয়মের কারণে আমরা আটকে গেছি। চাইলেও দলবদল নিয়ে কারো সঙ্গে কথা বলতে পারছি না। এ অবস্থায় জাভিকে আমি কি উত্তর দেব। ফুটবলার না দিলে সে কীভাবে মৌসুমের জন্য দল সাজাবে। উয়েফার উচিত আমাদের দিকটা ভেবে দেখা।

Related posts

সব ফরম্যাটেই ব্যাটারদের আস্থা অনেক কমে গেছে: ফাহিম

Asha Mony

কোথায় যে হারিয়ে গেলেন মতিন!

admin

আমরা চাইলেও ওদের মতো ছয় মারতে পারি না: লিটন

Asha Mony